প্রাণহানির ঘটনায় জমিয়তের সভাপতি ও মহাসচিব’র শোক

বাংলাদেশ

 

আলীনগর দর্পণ ডেস্ক : জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল্লামা শায়খ জিয়া উদ্দীন ও মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী গতকাল সোমবার সকালে বুড়িগঙ্গা নদীতে এক লঞ্চের ধাক্কায় আরেকটি ছোট লঞ্চ ডুবিতে হৃদয়বিদারক ও মর্মস্পর্শী ব্যাপক প্রাণহানির ঘটনায় গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

গতকাল (২৯ জুন) সোমবার এক যৌথ শোকবার্তায় জমিয়ত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মহাসচিব আরো বলেন, ‘বুড়িগঙ্গা নদীতে আজ সকালে মর্মান্তিক লঞ্চ ডুবির ঘটনায় অন্তত ত্রিশ জনের হৃদয়বিদারক মৃত্যুর খবরে আমি খুবই বেদনাহত ও শোকাহত হয়েছি। আমরা এখনও জানতে পারছি না, আসলে অন্য যাত্রীদের ভাগ্যে কি ঘটেছে এবং সর্বশেষ অবস্থা কি? কারণ এখনও উদ্ধার কাজ শেষ হয়নি, অনেকে নিখোঁজ রয়েছেন।

তাঁরা বলেন, এই দূর্ঘটনায় নিহতদের রুহের মাগফিরাত ও জান্নাতের জন্য দোয়া করছি। অমুসলিম কেউ থাকলে তাদের প্রতিও সমবেদনা। পাশাপাশি শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতিও গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। আসলে এসকল শোকাহত পরিবারের সদস্যদেরকে সান্তনা দেয়ার ভাষা জানা নেই।

জমিয়ত শীর্ষ নেতৃদ্বয় আরো বলেন, দেশের মানুষের প্রকৃত রাষ্ট্রীয় অভিভাকত্ব বলতে কার্যত: এখন কিছু নেই। সরকারের সকল পদক্ষেপে জনগণের সাথে ব্যবসায়িক চিন্তার প্রাবল্য। জনসেবার চিন্তা কার্যত এখন সরকারী কর্মসূচীতে নেই বললেই চলে। সড়কে, নদীতে, করোনায় বেঘোরে মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে। কোথাও শৃঙ্খলা নেই। রাষ্ট্রীয় কার্যকর উদ্যোগ চোখে পড়ে না। জননিরাপত্তার বিষয়টির প্রতি সরকারের কোন গুরুত্ব আছে বলে তো আমরা দেখছি না। যে কারণে প্রতিনিয়ত এধরণের দূর্ঘটনার শিকার হয়ে অসংখ্য মানুষ অকালে প্রাণ হারাচ্ছে।

তারা বলেন, সড়ক ও নদীপথের পরিবহন সেক্টরে চরম নৈরাজ্য ও বিশৃঙ্খলা বিরাজ করছে। আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাবে যানবাহনে যাত্রীদের জীবন-মরণের এখন কোন গ্যারান্টি নেই। বুড়ি গঙ্গায় আজ লঞ্চ ডুবির ঘটনার যে চিত্র সামনে এসেছে, এটা নদীপথে শৃঙ্খলা না থাকার কারণেই যে ঘটেছে স্পষ্ট। চোখের সামনেই একটা লঞ্চ আরেকটা ছোট লঞ্চকে ডুবিয়ে দিল।

আল্লামা শায়খ জিয়া উদ্দীন ও আল্লামা কাসেমী সরকারের প্রতি সড়কে ও নদীপথের গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে লৌকিকতা ও প্রদর্শন সর্বস্ব সিদ্ধান্তের পরিবর্তে জনদরদী হয়ে বাস্তবমুখী কাজ করার আহ্বান জানান এবং বুড়িগঙ্গার লঞ্চ ডুবির ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত ও দায়ীদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান। পাশাপাশি তিনি নিহত ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারসমূহকে ক্ষতিপুরণ দেওয়ার দাবি জানান।

23

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *