করোনা যুদ্ধের মাঝেও আইনি সেবা দিচ্ছেন সিলেটের গ্রাম আদালত সহকারীরা

Uncategorized

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বাংলাদেশ সরকার, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচী ইউএনডিপি’র আর্থিক ও কারিগরী সহায়তায় স্থানীয় সরকার বিভাগ কর্তৃক দেশের ১০৮০টি ইউনিয়নে বাস্তবায়ন হচ্ছে বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্প। ব্লাস্ট এর সহযোগীতায় সিলেট জেলার ৬ টি উপজেলায় ৫০টি ইউনিয়নে উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পভুক্ত ইউনিয়নের গ্রাম আদালত কাজ পরিচালনায় নিয়োজিত আছেন ৫০ জন গ্রাম আদালত সহকারী। বর্তমানে দেশে করোনা ভাইরাস নামক সংক্রমণ ব্যাধিটি (কোভিড-১৯) মহামারী আকার ধারণ করায় সরকার বিগত ২৬ মার্চ থেকে দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষনা করে যা বর্তমানেও চলমান রয়েছে। কিন্তু সরকার নির্দেশিত সাধারণ ছুটির মাঝেও থেমে নেই সাধারণ বিরোধ বিবাদ। এলাকায় বিবাদে সম্পৃক্তরা আইনি সেবা গ্রহণের জন্য গ্রাম আদালত সহকারীদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন।

জেলার প্রকল্পভূক্ত ৫০টি ইউনিয়নে বিগত এপ্রিল মাসে ২০৮ জন ভুক্তভোগী আইনি সেবা গ্রহনের জন্য যোগাযোগ করেছেন গ্রাম আদালত সহকারীরা মোবাইলের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় আইনি পরামর্শ প্রদান করেন। জেলার ১৭ টি ইউনিয়নে ২৯ জন ভুক্তভোগী মামলা দায়েরের জন্য আবেদন করেছেন। ২৯ টি মামলার আবেদন ইউনিয়ন পরিষদ গ্রাম আদালতে গ্রহণ করা হয়েছে।

সাধারণ ছুটির মাঝেও ১৮ জন গ্রাম আদালত সহকারী ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত ইউনিয়ন পরিষদের করোনা সচেতনতা মূলক বিভিন্ন সভায় অংশগ্রহণ করেছেন এবং সচেতনতা মূলক প্রচারণা কাজে প্রত্যেকের জায়গা থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগীতায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন।
এছাড়াও প্রকল্প হতে প্রকাশিত করোনা বিষয়ক সচেতনতা মূলক পোস্টার বিতরণ এবং বর্তমান সময়ের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে করোনা প্রতিরোধ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গ্রাম আদালত সহকারীরা নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছেন। বর্তমান পরিস্থিতির আলোকে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং সচিবদের সাথে সমন্বয় করে সরকারি উদ্যোগের বিভিন্ন প্রয়োজনীয় কাজে গ্রাম আদালত সহকারীরা সার্বিক সহযোগীতা করছেন।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ইউনিয়ন পরিষদ সমূহ আবার নিয়মিত গ্রাম আদালত পরিচালনার মাধ্যমে প্রান্তিক জনগণের বিচারিক সেবা নিশ্চিতকরণে যথাযথ ভূমিকা পালন করবে।

29

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *